দুই কন্যার কাহিনী (তৃতীয়াংশ)

“টেক মি হোম, কান্ট্রি রোডস্ ” আমার খুব প্রিয় জন ডেনভারের এই গানটা কানে হাল্কাভাবে কোথা থেকে যেন ভেসে আসতে লাগল, ঘুমটা আলতো ভাবে যেন দুধে ভেসে থাকা পাতলা সরের মত ছিঁড়ে ছিঁড়ে যেতে থাকল, চোখদুটো আস্তে আস্তে মেলে দেখি আমি একা বিছানায় শুয়ে, মাথার তলায় একটা বালিশ, গায়ে একটা পাতলা চাদর ঢাকা, বুঝতে পারছি চাদরের তলায় আমি সম্পূর্ণ নগ্ন। রুমিদি এককোণে একটা বেতের রকিং চেয়ারে দুলতে দুলতে কি যেন একটা বই পড়ছে, মিউজিক সিস্টেমটা মৃদুভাবে বেজে চলেছে। আমার জেগে উঠতে দেখে রুমিদি বই বন্ধ করে উঠে দাঁড়াল, আমার কাছে এসে আমার দুধারে হাত রেখে ঝুঁকে পড়ে মুখটা আমার কাছে নিয়ে এসে বলল, “উঠে পড়, আর শুয়ে থাকলে শরীর খারাপ করবে।“ আমি আদুরে মেয়ের মত শুয়ে শুয়েই দুহাত দিয়ে রুমিদির গলা জড়িয়ে ধরলাম, রুমিদি হেসে চাদরের উপর দিয়েই আমার বোঁটাটা নাড়িয়ে চুমকুড়ি দিয়ে বলল, “দুষ্টু কোথাকার, ছাড় এখন। তোমার জামাকাপড় লাগোয়া বাথরুমে রেখে দিয়েছি, তুমি ফ্রেশ হয়ে নাও, কেমন?”
রুমিদি জানে আমি চাদরের তলায় নগ্ন অবস্থায় আছি। ও দরজাটা লাগিয়ে নীচে চলে যেতে আমি চাদর সরিয়ে উঠে পড়ে বাথরুমে গেলাম। ভাল করে বডি-ফোম লাগিয়ে পরিষ্কার হলাম, ক্লোসেটে দেখি রুমিদি নতুন এক সেট হাউসকোট রেখে গেছে, হাল্কা গোলাপী ফ্লোরাল প্রিন্টের, ওটা পরে বাইরে এসে নীচে চলে এলাম, দেখি রুমিদি কৌচে বসে সামনের টেবিল পা তুলে আয়েস করে টিভি দেখছে। আমায় দেখে বলল
   -তুমি একটু বোসো, আমি উপরের ঘরটা একটু পরিষ্কার করে আসি
   -আমিও যাচ্ছি চলো তোমার সাথে।
   -এসো তাহলে।
দুজনে মিলে উপরের ঘরে এলাম, দরজা ঠেলে খুলতেই একটা বোঁটকা আশঁটে গন্ধ নাকে এসে লাগল। এটা হওয়ারই কথা, যৌন-সংসর্গের পর মানুষের শরীরের রসের যে গন্ধ সারা ঘরে ছড়িয়ে থাকে সেটা মোটেই ভাল নয়। পর্দা টেনে জানলাগুলো খুলে দিলাম, ফ্যানটা ফুল স্পিডে চালিয়ে রুমিদি ব্যালকনির দিকে দরজাটা খুলে দিল, বিছানায় একটা নতুন চাদর পাতল। আমার মাথায় অনেকক্ষন ধরেই একটা প্রশ্ন ঘুরছিল, এবার জিজ্ঞেস না করে থাকতে পারলাম না
   -রুম, সেদিনের পার্টিতে তোমার একটা সুন্দর ন্যাভাল রিং দেখেছিলাম, আজ তো সেটা দেখতে পেলাম না, তোমার নাভিতেও তো কোন ফুটো নেই।
   -দূর বোকা মেয়ে, আজকাল বিদেশে এইডসের ভয়ে বডি পিয়ার্সিং, মানে শরীর ফুটো কেউ করাচ্ছেই না। এই রিংগুলো একটু অন্য রকমের, এক রকমের স্টিকিং প্লাস্টারের মত জিনিষ দিয়ে নাই-এর ভিতরে উপরের দিকে চামড়ার খাঁজের সাথে আটকে দিতে হয়। বাইরে থেকে কিছু বোঝা যায় না।
   -এমা, তাই নাকি, আমি এটা জানতাম না, খুলে যায় না?
   -ধ্যুত, আমি তো ডিসকোথেকেও নাচি এটা পরে। আর নিজের ইচ্ছেমত খুলেও ফেলা যায়। অফিসে তো আর এটা পড়ে যাওয়া যায় না।
   -আমি তো চামড়া ফুটো করার ভয়ে লাগাতে পারি না, নাহলে আমারও খুব শখ ন্যাভাল রিং পরার।
   -ওমা, তাই নাকি, ঠিক আছে, আমার অনেকগুলো আছে, তুমি তোমার পছন্দমত বেছে নিয়ে পর। আমার তো নিপল্ রিং-ও আছে, ক্লিপ দিয়ে আটকে নিলেই হল।
   -ইস্, তাই নাকি, তুমি পর?
রুমিদি আমার দিকে মুচকি হেসে চোখ টিপে দিল। আমরা দুজনেই হেসে উঠলাম। রুমিদি বলল, “চলো, আজ ‘মুনলাইট সোনাটা’-য় যাই, ওখানকার ড্যান্সিং ফ্লোরটা ভাল, রিভলভিং আর ডি.জে. ছেলেটারও সিলেকশান ভাল। তুমি আগে গেছ ওখানে?”
   -‘মুনলাইট সোনাটা’-য় যাইনি, তবে ‘এসট্যাসি’ বা আরও কয়েকটায় গেছি, তবে কোন মেয়ের সাথে নয়”, বলতে বলতে দুজনেই হেসে উঠলাম। ঘর গোছানো শেষ হয় এল, রুমিদি একটা রুম-ফ্রেশনার স্প্রে করে দিল, দরজা বন্ধ করে দুজনে দুজনার হাত ধরে নেমে এলাম একতলায়।
একটা ব্যাপার নিজের মনে বুঝতে পারলাম, যেভাবে একটা ছেলে একটা মেয়েকে ভালবাসে, প্রেমে পড়ে, সেইভাবে একটা মেয়েও আর একটা মেয়ের প্রেমে পড়ে তাদের মাঝে সাধারণ বন্ধুত্বের সীমারেখা পেরিয়ে। এটা একটা অন্য অনুভূতি যেটা শুধুমাত্র যৌনতায় সীমাবদ্ধ নয়, বরং সমস্ত সত্তা দিয়ে তাকে নিজের করে পেতে চাওয়ার ইচ্ছা। বোধহয় মেয়েদের মধ্যে এটা বেশী থাকে ছেলেদের তুলনায়। লেসবিয়ানিজিমকে ঠিক সমকামী বলা উচিৎ নয়, কামনা অবশ্যই থাকে, তবে ভাল লাগা আর ভালবাসার একটা ছোঁয়া দুজনকে বেঁধে রাখে।
রুমিদি আমাকে ড্রয়িং রুমে বসিয়ে রান্নাঘরে গেল। কিছুক্ষনের মধ্যেই একটা বড় কাঁচের বিয়ার মগে ফেনাওয়ালা কোল্ড কফি নিয়ে আমার পাশে এসে বসল। রুমিদিকে পাশে পেয়ে আমি মনটা যেন ইচ্ছেপাখী হয়ে খুশীতে উড়ে বেড়াতে লাগল। রুমিদির কাঁধে মাথা রেখে দুহাত দিয়ে ওর সরু কোমরটা জড়িয়ে ধরলাম,
   -এই সোনাটা, কি হচ্ছে, আমার জামার কফি পড়ে যাবে যে।
   -যাক পড়ে, আগে বল তুমি আমায় ভালবাসো কি না?
   -আমি না জানালে তুমি কি এই ভালবাসার কথা জানতে?
   -সত্যিই জানতাম না, ভাবিনি কখনও এভাবে।
   -আমিও ভাবিনি এভাবে তোমায় পাব।
   -তোমার অন্য বান্ধবীরা তো ছিল, আছেও তো নিশ্চয় এখনও।
   -আছে তো, দুজন, একজন স্প্যানিশ আর একজন ব্রিটিশ, কিন্তু আমি চাইছিলাম একজনকে যার সাথে মন খুলে কথা বলা যায়, সবকিছু ভাগাভাগি করে একান্তভাবেই নিজের করে পাওয়া যায়।
আমি চুপ করে রইলাম, এই সত্যির সামনে চুপ করে থাকা ছাড়া আর কি-ই বা করা যায়, ও কিছুই লুকোয়নি, খোলা বই-এর মত মনটাকে মেলে ধরেছে আমার সামনে। জানিনা এভাবে এতটা সত্যি আমি নিজেও বলতে পারতাম কিনা। কিছুক্ষন এভাবে ওকে জড়িয়ে বসে রইলাম, রুমিদিও বোধহয় আমার ভাবনাটা বুঝতে পারল, আমার মনে যে একটা প্রচন্ড ঝড় বইছে সেটা ওর অজানা নয়। কি বলব বুঝতে পারছিলাম না, কি করা উচিৎ তারও যেন খেই হারিয়ে ফেলেছি আমি। অবশেষে সব দ্বিধা ঝেড়ে ফেললাম, ওকে হারাতে চাইনা আমি, আমার নিজেরও একটা সংসার আছে, সেটাও বজায় রাখতে চাই, আমি কাউকেই ঠকাতে চাই না আবার নিজেও সব কিছু হারাতে চাইনা।
রুমিদি মগ থেকে এক চুমুক কফি খেয়ে মগটা আমার মুখের সামনে ধরল, আমিও সেখান থেকে এক চুমুক খেলাম। এরপর ও আবার এক চুমুক খেয়ে আমার মুখের মানতে ধরতেই আমি চুমুক দিয়ে অনেকটা কফি মুখে তুলে, কফিটা দিয়ে মুখটা কুলকুচোর মত করে, ঐ কফিটাই আবার মুখ থেকে ফেলে দিলাম মগে, আমার লালা মেশানো কফিটা মগের উপরে ভাসতে লাগল, রুমিদি কোন কিছু না বলে ঐটা এক চুমুকে খেয়ে নিল। এরপর রুমিদিও ঐ একই জিনিষ করল আমার জন্য, দুজনে দুজনার সাথে খুনসুটি করতে লাগলাম।
আমি রুমিদিকে দুহাতে জড়িয়ে ওর শরীরের উপর ভর দিয়ে বসে ছিলাম, আমার হাতটা ছিল ওর কোমরের কাছে, সাটিনের হাউসকোটের নীচে টের পেলাম ওর কোমরের উপর চেপে বসে থাকা থং-এর ইলাস্টিক বেল্টটা; থং-লাইন, মানে বেল্টের ধার বরাবর আমার আঙ্গুলটা আস্তে আস্তে চালাতে লাগলাম, মাঝে মাঝে বেল্টটা টেনে আবার ছেড়ে দিতে থাকলাম। রুমিদি আমার গালে ওর হাতটা রেখে আদর করতে করতে বলল
   -সুম, পাজী মেয়ে, এটা কি হচ্ছে?
   -উঁউঁউঁ
   -খুব দুষ্টু হয়েছো তুমি, খালি বজ্জাতি।
   -শুধু তো তোমার সাথে,
   -তোমার শরীরটা কি নরম আর তুলতুলে, ফুলো ফুলো, মনে হয় শুধু চটকাই। নলে আমার হাউসকোটের ফাঁক দিয়ে ওর হাতটা ঢুকিয়ে আমার থাইদুটো চটকে চটকে টিপতে লাগল।
   -উঁউঁমম্, ওকে জড়িয়ে আদুরী বেড়ালের মত ঘড়ঘড় করলাম আমি। ওক কোমর থেকে হাতটা একটু সরিয়ে ওর তলপেটে আঁচড় কাটতে লাগলাম। এর মধ্যে কফিটা শেষ করে রুমিদি বলল
   -চলো, আমরা রেডি হয়ে নি বেরোনোর জন্য, একটু দূর-ও আছে, তার উপর শনিবার, ভীড়ও হবে।
আমি ওকে ছেড়ে উঠে দাঁড়ালাম, রুমিদি বলল, “তুমি তো সেরকম জামা-কাপড় নিয়ে বেরোওনি, চলো, একটা ড্রেস আমার আলমারী থেকে বেছে নাও”। আমি সত্যিই সেরকম ভাল কোনো ড্রেস আনিনি সাথে করে, এয়ারপোর্টে মিলুকে তুলে সোজা চলে যেতাম বাপীর কাছে, মাঝখানে ওর ফোন পেয়ে চলে এসেছি ওর কাছে। রুমিদি আমাকে ওর ঘরে নিয়ে গিয়ে ওর পেল্লাই সাইজের দুটো ওয়ার্ডরোব খুলে দিল, অসংখ্য ড্রেস থরে থরে সাজানো। আমি বুঝে পেলাম না কিভাবে এর মধ্যে থেকে একটা বেছে নেব।
   -রুমিদি, তুমিই বেছে দাও আমার জন্য, এর থেকে আমি খুঁজে বার করব কি করে?
   -সরো তাহলে, আমি দেখছি, তুমি সব রকম ড্রেসই তো পর।
   -হ্যাঁ, তা পরি।
   -তোমার গায়ের রঙটা একদম দুধে-আলতা, পূর্ব-ইউরোপের মেয়েদের মত, তোমায় একটা ডীপ কালারের কিছু দিচ্ছি, বলে আমার জন্য ও একটা খুঁজে পেতে ও একটা হল্টার নেকের ব্যাক-ওপেন কচি-কলাপাতা রঙের একটা স্কিন-ফিটিংস্ টপ আর সাথে বাদামী রঙের স্কার্ট বার করে দিল।  
   -পছন্দ হয়েছে?
   -উম্ম, দারুণ, কোথা থেকে কিনেছো?
   -এখানকার নয়, লন্ডনের, মার্ক এ্যান্ড স্পেন্সার থেকে, বছর খানেক আগে, আমি দু-একবার পরেছি, আসলে ঝোঁকে পড়ে কিনেছি, আমার গায়ের রঙ তোমার মত নয় বলে এটা আমায় তত মানায় না।
   -অ্যাই রুমিদি, বারবার গায়ের রঙের কথা বলবে না, আমার ভাল লাগে না।
   -এমা, আমি তো সত্যি কথাই বলছি, প্রত্যেক মেয়েরই উচিত তাকে যেটা মানায় সেটাই পরা। দাঁড়াও, এই টপটার সাথে এমনি ব্রা পরা যাবে না, তোমায় একটা স্ট্র্যাপলেস ব্রা দিচ্ছি।
রুমিদি ঠিকই বলেছে, হল্টার নেকের টপগুলো পরলে বগল আর কাঁধ পুরোটাই খোলা থাকে বলে ব্রা-এর স্ট্র্যাপটা বিসদৃশ ভাবে কাঁধের কাছে বেরিয়ে থাকে, অনেকে এর সাথে স্বচ্ছ স্ট্র্যাপের ব্রা পরে, ফলে দূর থেকে বোঝা না গেলেও কাছে এলে বোঝা যায় কাঁধের উপর চিকচিকে স্ট্র্যাপদুটো। রুমিদি আমাকে একটা ইলাস্টিক নেটের স্ট্র্যাপলেস ব্রা বার করে দিল। এই ব্রা-গুলো পরে খুব আরাম, ব্রা-টার কাপদুটো ফিনফিনে ইলাস্টিক নেট দিয়ে তৈরী, সাইজ অনুযায়ী মাইদুটোর উপর নেট-টা ছোটবড় হয়ে চেপে বসে থাকে, পিছনটা হুক দিকে আটকে নিলেই হল।
আমি খুব সাহসী হয়ে গেলাম, বিনা বাক্যব্যায়ে ওর হাত থেকে টপ আর স্কার্টটা নিয়ে পাশের ঘরে চলে এলাম। ভিতরে ভিতরে একটা উত্তেজনা টের পাচ্ছিলাম অনেকক্ষন ধরেই, নিজেকে খুব সেক্সী হয়ে সাজতে ইচ্ছে হল, সাথে রুমিদি থাকবে মনে হতেই সাহসটা আরও বেড়ে গেল। আশেপাশের পুরুষ, এমনকি মেয়েরাও লোলুপ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকবে, পুরুষগুলোর ল্যাওড়াটা ঠাটিয়ে যাবে, ছোঁকছোঁক করবে আমার আশেপাশে, বাড়ী ফিরে হয় আমাকে ভেবে হ্যান্ডেল মেরে মাল ফেলবে না হয় একান্ত বিশ্বস্ত স্বামী হয়ে বউকে চুদতে চুদতে আমার কথা ভাববে। আমার ভিতর ঘুমিয়ে থাকা নোংরা মেয়েছেলেটা ধীরে ধীরে জেগে উঠছে বুঝতে পারছি, মনের গভীরে থাকা ক্লেদাক্ত পাপের বিষ রক্তে ছড়িয়ে পড়তে লাগল।
হাউসকোটটা গা থেকে খুলে ফেললাম, ভিতরে ব্রা-প্যান্টি কিছুই পড়িনি। সম্পূর্ণ ল্যাংটো হয়ে মাটিতে বসে খাটের তলা থেকে নিজের ব্যাগটা টেনে একটা নেটের ফুলকাটা প্যান্টি বার করে পরলাম। ফিরে এসে রাত্তিরে রুমিদির কাছে আবার একবার চোদা খেতে হবে, এই প্যান্টিটা পরা অবস্থায় আমায় দেখলে রুমিদিরও হিট লাফিয়ে বেড়ে যাবে।
নেটের ব্রাটা পরে মাইদুটোকে নেটের কাপের ভিতর সেট করে নিলাম, এরপর হল্টার-টপটা পরে দেখি এই টপটার ডিজাইনটা একটু অন্যরকমের, বুকের সামান্য নীচ থেকে সামনের দিকটা পেটের কাছে এসে সামনের দিকটা উল্টো V-এর মত কাটা, আর বুকের ঠিক নীচেই একটা হাল্কা ইলাস্টিকের বেল্ট লাগানো টপটাকে গায়ের সাথে লেপ্টে ধরে থাকল। এতে মাইদুটো আরও চাপ খেয়ে টানটান হয়ে ফুটে থাকল, বোঁটাদুটো নেটের ব্রার ভিতর থেকে জেগে রইল, আরও বেশী স্পষ্ট হয়ে উঠল। ন্যাশপাতির মত গোল টাইট পুরুষ্টু দুটো চুঁচি, তার উপরে থাকা উঁচু হয়ে থাকা নিপলদুটো যেন সবাইকে হাতছানি দিয়ে ডাকতে লাগল। আসলে মেয়েরা নিপল এই জন্যই জামার উপর ফুটিয়ে তোলে এমনিতে ব্রা না পরেই টাইট টপ পরলেই নিপলটা বাইরে থেকে বোঝা যায়। আগ্রহী পুরুষদের আরও ক্ষুধার্ত, আরও কামার্ত করে তাদের অভুক্ত রেখে মজা দেখার এটা একটা খেলা।
নাভির তলায় স্কার্টটা পরে চুলটা আঁচড়ে নিলাম, মাথায় ক্লিপ আটকে চুলটা খুলে রাখলাম। চোখে মাশকারা ও আই-ল্যাসার লাগালাম, ঠোঁটে গাঢ় করে লিপস্টিক আর তার উপর লিপগ্লস লাগালাম, ব্রাশ করে মুখ থেকে তেলতেলে ভাবটা মুছে নিলাম। গলায়, কানে ও হাতে পোড়ামাটির তৈরী ম্যাচিং সেটের জাঙ্ক জুয়েলারী পরে নিলাম। বগলে, বুকের খাঁজে, ঘাড়ে পারফিউম স্প্রে করে যখন আয়নার সামনে নিজে দেখলাম, নিজেরই মাথাটা ঘুরে গেল, বেহস্তের হুরী না হলেও দুর্দান্ত সুন্দরী আর যথেষ্ঠ সেক্সী মেয়ে বলা তো যায়ই।
দরজা খুলে লিভিং রুমে এলাম, কিছুক্ষন পরই রুমিদি বেরিয়ে এল। আমায় দেখে ও হাঁ করে চেয়ে থাকল, আমি মুচকি হেসে বললাম,
   -কি হল?
   -কি দারুন দেখাচ্ছে তোমায়, মনে হচ্ছে টপ করে খেয়ে ফেলি।
   -রাতে তো খাবেই আমায়, আর তোমাকেও তো সেক্সী-বম্ব মনে হচ্ছে।
   -তুমি খুব বাজে মেয়ে হয়ে গেছ, খালি খারাপ খারাপ কথা, দাঁড়াও তোমার জন্য আর একটা জিনিষ আনছি, বলে রুমিদি ঘরের ভিতর আবার চলে গেল।
সত্যি রুমিদিকে দেখাচ্ছেও দারুন, ওর ফিগারটা অসাধারণ, মাথায় আমার চেয়ে ইঞ্চি তিনেক লম্বা, ধারালো নাক, চিবুক। হাল্কা আকাশী রঙের বিপদজনকভাবে লোকাট লম্বা ঝুলের হাতকাটা একটা টপ পরেছে, কোমরের কাছ অব্দি চাপা, তার নীচে স্কার্টের মত ছড়িয়ে গেছে। বুকের মাঝখান পর্যন্ত অনেকটা কাটা, তবে ক্লিভেজ তৈরী হয়নি ওর মাইদুটো দুপাশে ছড়ানো বলে, কিন্তু মাইদুটো যেন একটু টোকা দিলেই বের হয়ে আসবে। তলায় একটা হাঁটু অব্দি লম্বা কালো টাইটস্ পরেছে, ওর লম্বা লম্বা পাদুটো যেন আরও যৌনতার গন্ধে মাখামাখি হয়ে গেছে। এরই মধ্যে ও ঘর থেকে বেরিয়ে এল, হাতে কি যেন একটা নিয়ে, আমার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে পড়তেই আমি চমকে উঠে সরে গেলাম।
   -এ্যাই, পালাচ্ছো কোথায়, এদিকে এস।
আমি ওর সামনে এগিয়ে এলাম, আমার পেটের সামনে ওর মুখটা এখন, দেখি ওর হাতে একটা ন্যাভাল রিং। জিনিষটা ঠিক রিং নয়, অনেকটা গোল ছোট চাকার মত, সোনালী রঙের, ধার বরাবর চারিদিকে পাথর বসানো, মাঝে একটা বড় নীল পাথর, সব মিলিয়ে ওটা আলোয় ঝকঝক করছে। রুমিদি একটা স্টিকার দেখোলো আমায়, স্বচ্ছ, গোল বড় টিপের মতন দেখতে, দুদিকেই মোম-কাগজের তলায় আঠা লাগানো, । রুমিদি স্টিকারটার একটা দিক থেকে কাগজটা খুলে আঠা দিয়ে ন্যাভাল টপটার একদিকে লাগিয়ে নিল, এবার অন্য দিকের মোম-কাগজটা খুলে ন্যাভাল টপ-টা আমার নাভির গর্তে ঢুকিয়ে সেট করে দিল। নাভির উপরের দিকের খাঁজের ভিতর আঠা দিয়ে ওটা একদম সেঁটে বসে গেল।
আমি এর আগে কোনদিন ন্যাভাল রিং পড়িনি, এত সহজে যে পড়া যায় তাও জানতাম না। দারুন লাগছিল ন্যাভাল রিংটা পড়ে, নাভিটা আলোয় ঝকঝক করছে। একটু ভয় ভয় করছিল, তবে সামান্য একটু হাঁটাচলা করে বুঝলাম খুলে যাওয়ার কোন ভয় নেই। ঘুরে দাঁড়িয়ে রুমিদির দিকে চেয়ে মুচকি হাসলাম, নিজেকে একদমই অন্যরকম দেখাচ্ছিল বুঝতে পারছিলাম।
আমরা বেরোনোর জন্য রেডি হয়ে গেছি, রুমিদিকে বললাম, “আমি গাড়ীটা যেভাবে পার্ক করে রেখেছি তাতে তোমার গাড়ীটা গ্যারেজ থেকে বার করতে পারবে না, আমার গাড়ীটাই নিয়ে যেতে হবে”, বলে ঘর থেকে গাড়ীর চাবি, পার্স, ক্রেডিট কার্ড ইত্যাদি টুকিটাকি জিনিষ নিয়ে দুজনে বের হলাম, রুমিদি বাড়ী লক করে দিল।
‘মুনলাইট সোনাটা’ ডিসকোথেক-কাম-বার-কাম রেস্তোঁরা, নতুন খুলেছে শহরের বাইরের দিকে, একটু নিরিবিলি আর মানুষজনের যাতায়াত কম, তবে নিরাপত্তা যথেষ্ঠ বেশী। রুমিদির সাথে বকর্-বকর্ করতে করতে প্রায় ঘন্টাখানেকের পথ যেন হাওয়ায় ভাসতে ভাসতে চলে এলাম। ওর হাঁটা-চলা, কথা বলা, তাকানো, আমার দিকে চেয়ে হাসি – সবকিছুই এত ভাল লাগছে আমার – ওর প্রেমে হাবুডুবু খেতে লাগলাম, এটা শুধু যৌন সম্পর্ক নয়, তার চেয়েও বেশী, ভালবেসে নিজের করে পেতে চাওয়া। আমি এক পতঙ্গের মত রুমিদির ভালবাসার ও ভাললাগার আগুনে পুড়ে পুড়ে খাক হয়ে যেতে লাগলাম।
‘মুনলাইট সোনাটা’-র পার্কিং লট-টা আন্ডারগ্রাউন্ডে, ফলে মাটির উপরে জায়গাটা অনেকটা বেশী পেয়েছে, ফুলের বাগান আর মিউজিকাল ফাউন্টেন দিয়ে জায়গাটা সাজিয়েছেও ভাল। গাড়ীটা সোজা বেসমেন্টে ঢুকিয়ে ইলেকট্রনিক লকিং-টা অন করে দিলাম। গাড়ীর চাবিটা সিকিউরিটির দ্বায়িত্বে থাকা লোকের হাতে তুলে দিলাম।
বেসমেন্ট থেকেই লিফট সোজা উঠে গেছে, রুমিদিকে নিয়ে লিফটের দিকে এগোতে ও হাত দিয়ে আমার কোমরটা জড়িয়ে ধরল, যে কেউ এখন আমাদের দুজনকে দেখলেই বুঝতে পারবে আমাদের মধ্যে কি সম্পর্ক। ও সঙ্গে থাকাতে আমারও সাহসটা হঠাৎ করেই বেড়ে গেল, আমিও একইভাবে ওকে জড়িয়ে ধরলাম, দুজনে প্রেমিকার মত নিবিড়ভাবে দুজনকে জড়িয়ে লিফটে উঠলাম।
ডান্সিং ফ্লোরটায় এরই মধ্যে বেশ কিছু ছেলেমেয়ে চলে এসেছে, সবাই প্রায় ছেলে-মেয়ে জোড়ায় জোড়ায়, শুধু দুজন মেয়ে একসাথে বোধহয় আমরাই। ব্যাপারটা এখানে একটু অন্যরকম দেখালেও বিদেশে এটা খুবই সাধারন, আসলে আমাদের এখানে লেসবি মেয়েরা এভাবে দুজনে একসাথে নিজেদের সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে আনতে ভয় পায়, আমিও হয়েত পেতাম, যদি না ও আজ আমার সঙ্গে থাকত।
আমরা প্রথমে বার কাউন্টারের দিকে এগিয়ে গেলাম, দুজনে দুটো লার্জ-সাইজ ভদকা নিয়ে এককোনে রাখা দুটো বার-টুলে গিয়ে বসলাম, আমি ডান পায়ের উপর বাঁ পা তুলে বসলাম, স্কার্টটা ডান পায়ের হাঁটুর কিছুটা উপরে উঠে এল, পাশ দিয়ে ঐ পায়ের থাই-এর বেশ খানিকটা অংশ উন্মুক্ত হয়ে রইল, তলার থাকা বাঁ পাটারও হাঁটুর উপরে কিছুটা অংশ বেরিয়ে রইল, আমার ফর্সা মসৃণ পা-দুটো শঙ্খ-লাগা দুটো সাপের মত হয়ে জড়াজড়ি করে রইল, কাঁধ আর পিঠের অনেকটাই খোলা, লকলক করে বিষের জ্বালা ধরিয়ে দিচ্ছে চারিদিকের লোকজনের মধ্যে, নাভির উপর আটকে থাকা রিং-টা টানটান নিভাঁজ পেটের উপর চকমক করছে, যৌনতা আর সৌন্দর্য মিলেমিশে মোহিনী মায়ার মত আমার সারা শরীরটা আশেপাশের লোকজনকে চুম্বকের মত আকর্ষণ করতে লাগল।
এই ধরণের ডিসকোথেকে সাধারনত পার্টনার ছাড়া ঢুকতে দেয় না, তবে এটা সেই ধরনের নয়। কিছুক্ষনের মধ্যেই আমদের চারিপাশে ছুঁকছুকে লোকেদের ভীড় জমতে শুরু করল তাদের সাথে নাচাতে যাওয়ার জন্য, বেশীর ভাগই অল্পবয়সী, আমার মতই হবে। দুটো সুন্দরী সেক্সী মেয়ে একা একা এই ভাবে বসে ভদকা খাচ্ছে এটাই ওদের কাছে একটা আকর্ষনীয় ব্যাপার। রুমিদি অদ্ভুত কায়দায়, সবাইকে মিষ্টি হেসে ‘না’ বলতে থাকল, আস্তে আস্তে কয়েকজন চলে গেলেও দূর থেকে আমাদের দিকে হ্যাংলার মত চেয়ে রইল, চোখ দিয়ে চেটে চেটে খেতে লাগল আমাদের।
এই লোলুপ দৃষ্টিতে তাকানো দেখে বেশ মজা পাচ্ছিলাম আমরা। শকুনের মত এদের দৃষ্টি দেখেই বুঝেছি বাঞ্চোত ছেলেগুলোর জাঙ্গিয়ার তলায় ল্যাওড়াটা নিশ্চয় ঠাঠিয়ে উঠেছে। আমার বুক আর পেট, খোলা কাঁধ, পিঠ আর পাদুটো ওদের লালসা আর উত্তেজনার পারদ চড়িয়ে দিতে থাকল। রুমিদি এর মধ্যে ওর কনুইটা আমার কাঁধে আলতোভাবে রাখল, ওর চকচকে বগলটা ওদের কামনার আগুনে ঘি ঢেলে দিল।
এর মধ্যেই রুমিদি আমার কাঁধে ভর দিয়ে শরীরটাকে সামনের দিকে একটু ঝুঁকিয়ে দিল, এমনিতেই ও একটা লোকাট টপ পরে ছিল, সামনে ঝুঁকতে মাইদুটোর বেশ কিছুটা সামনে থেকে জামাটার ফাঁক দিয়ে দেখা যেতে লাগল। এই ধরনের ইচ্ছা করে শরীর দেখানোকে ফ্ল্যাশিং বলে। লেসবি মেয়েদের এটা একটা প্রিয় খেলা, নিজেদের মধ্যেই এমনভাবে ঘনিষ্ঠ হয়ে বসবে, ইচ্ছে করেই এমন ভাবে শরীরটাকে রাখবে আর দেখাবে, যাতে সেটা দেখেই পুরুষদের কামনার আগুন জ্বলে উঠে, অথচ ঐ পর্যন্তই, এর বেশী নয়, কিছুতেই মেয়েদের নাগাল পাওয়া যায় না, ছেলেগুলো শুধু বুভুক্ষু দৃষ্টিতে ড্যাবডেবিয়ে চেয়ে থাকে।
এর মধ্যে একটা কান্ড ঘটল। এতক্ষন যারা আমাদের কাছে আসছিল তারা সবাই অল্পবয়েসী ছেলে, তাদের পক্ষে আমাদের সাথে নাচতে চাওয়াটা স্বাভাবিক। এইবার প্রায় বছর পঞ্চাশের উপর বয়সী একজন, থলবলে ভুঁড়ি, বেঢপ চেহারা আর টাকলু মাথা নিয়ে আমাদের কাছে এসে নাচের সঙ্গী হতে অনুরোধ করল। এই ধরনের লোকগুলোকে আমি খুব ভালভাবে চিনি, এরা প্রত্যেকেই বিবাহিত, ঘরে বউ-বাচ্ছার কাছে ভালমানুষটি হয়ে ঘাপটি মেরে থাকে, অফিসে জুনিয়ার মেয়েদের বা চাকরী দেওয়ার নাম করে অভাবী অল্পবয়েসী মেয়েদের ভুলিয়ে-ভালিয়ে নিয়ে গিয়ে ভোগ করে ভাগিয়ে দেয়। অর্থ আর প্রতিপত্তির জোরে এদের কেউ কিছু করতে পারে না। রুমিদি আমাকে অবাক করে ওর সাথে নাচতে যেতে রাজী হয়ে গেল। আমাকে যাওয়ার আগে আড়ালে মুচকি হাসি দিয়ে চোখ মেরে দিল।
ব্যাপারটা বুঝতে না পেরে আমি একাই বসে রইলাম, রুমিদি মালটাকে নিয়ে ডান্সিং ফ্লোরে চলে গেল, যেখানে বসে আছি সেখান থেকে এদের ভালভাবে নজর করতে লাগলাম। লোকটা রুমিদির কোমরে হাত দিতে রুমিদি ওর আরও ঘনিষ্ঠ হয়ে এল, একটা হাতে ভদকার গ্লাসটা ধরে অন্যহাত লোকটার কাঁধে রেখে মিউজিকের সঙ্গে স্টেপিং ফেলতে লাগল। ডিসকোথেকে মিউজিকগুলো সাধারনত খুব দ্রুত তালে বাজে, রুমিদির সাথে অত তাড়াতাড়ি স্টেপিং ফেলতে গিয়ে লোকটা কিছুক্ষনে মধ্যেই বেদম হয়ে গেল, পা মেলাতে পারছিল না। রুমিদি লোকটাকে প্রায় ঘাড় ধরে নাচাতে লাগল, ও বাধ্য হয়ে উল্টোপাল্টা পা ফেলে কোন রকমে রুমিদির সাথে সঙ্গ দিতে লাগল। রুমিদি নাচের মধ্যেই ওর থাইটা লোকটার পায়ের ফাঁকে ঢুকিয়ে আলতো করে ওর ধোনটায় গুঁতো মারল।
এরপর রুমিদি যা করল তা আমি ভাবতেই পারিনি। ভদকার গ্লাসটা এক হাত থেকে অন্য হাতে নিল, আর সেই হাত বদলের সময় আলতো করে লোকটার প্যান্টের চেনের উপর টুক করে হাত বুলিয়ে দিল, এমন কায়দায় করল যাতে দেখে মনে হবে হাতটা লেগে গেল, কিন্তু আমি জানি ও এটা ইচ্ছে করেই করল। লোকটার অবস্থা তখন দেখার মত, সামনে ঐরকম একটা সেক্স-বোম মার্কা মেয়ে নিয়ে নাচছে, তার উপর ওর ধোনে মেয়েটার হাতের আলতো ছোঁয়া, লোকটা উত্তেজনায় হাঁপাতে শুরু করল। রুমিদি মুচকি হেসে কি যেন একটা বলতে লোকটা মাথা নেড়ে না বলল, শুনতে পেলাম না এতদূর থেকে। রুমিদি ওর গ্লাসের বাকী ভদকাটা ওর ঠোঁটের সামনে ধরতেই লোকটা চুমুক মেরে বাকী ভদকাটা খেয়ে নিল। পাশ দিয়ে একজন জ্যানিটার যাচ্ছিল, ওর ট্রেতে গেলাসটা রেখে লোকটা রুমিদির কাঁধে হাত দিল। রুমিদি প্রায় লোকটার গায়ে সেঁটে গিয়ে ওর মাইটা লোকটার শরীরে একবার ঠেকিয়েই সরিয়ে নিল, এরপর যতবারই লোকটা রুমিদিকে কাছে টানার চেষ্টা করে, রুমিদি পিছলে বেরিয়ে যেতে লাগল। লোকটা তখন করুণ অবস্থা, না পারছে রুমিদির সাথে তালে তাল মিলিয়ে নাচতে, না পারছে ওকে ধরতে, এই ফাঁকে দেখি আরও একবার ও লোকটার ধোনের জায়গাটায় কায়দা করে হাত লাগিয়ে দিল, থাই দিয়ে ধোনটাকে ঘষেও দিল বারকয়েক। একবার বোধহয় একটা জোরেই দিল, লোকটা ক্যালানের মত কি করবে বুঝতে না পেরে রুমিদিকে কি একটা বলল, রুমিদি দেখলাম মাথা নাড়ল। লোকটা ওর হাতটা রুমিদির কোমর থেকে নামিয়ে পাছার উপর দিল। রুমিদি আলতে হেসে কোমরে এক ঝটকা মারতেই ওর হাতটা ওখান থেকে সরে গেল, লোকটাকে নাচাতে নাচাতে ও ফ্লোরটার একটা কোনের দিকে চলে এসেছে, আমার ঠিক মুখোমুখি। এবার শরীর দিয়ে রুমিদি লোকটাকে ভীড়ের বাকীদের থেকে আড়াল করে নিল, আমার দিকটা সামনে বলে আমি ওদের স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছিলাম। রুমিদি বাঁ-হাতটা লোকটার কোমরে রেখেছিল, সেখান থেকে হাতটা নামিয়ে লোকটার প্যান্টের ধোনের জায়গাটার উপর রাখল, এমনিতেই লোকটার হিট উঠে গেছিল বলে বোধহয় সহজেই ল্যাওড়াটাকে উপর থেকে ধরতে পারল। এবার এটাকে মশমশ করে মুচড়ে, নাড়িয়ে, চিপে, লোকটার গালে একটা আলতো ঠোনা মেরে আমার কাছে চলে এল। লোকটা বোধহয় এতটা স্বপ্নেও ভাবেনি। বোকার মত মুখ করে দাঁড়িয়ে রইল, পকেটে হাত ঢুকিয়ে দিল, বোধহয় বাঁড়াটাকে ঠিকমত সেট করে নেওয়ার জন্য।
এই ধরনের খেলাকে লেসবি মেয়েরা শ্যাডোয়িং বলে, যেখানে মেয়েরা ছায়ার মত হয়ে ধরা দেয়, বাকীটা অধরা থাকে। লোকটা হতভম্ব হয়ে দাঁড়িয়ে রইল, কিছুক্ষন আমাদের দিকে চেয়ে রইল, রুমিদি ওর দিকে ফিরেও তাকাল না, বার থেকে আরও একটা লার্জ সাইজ ভোদকা নিয়ে আমার পাশে বসে আমার সাথে গল্প করতে লাগল। লোকটাও বেশী কিছু করার সাহস পেল না, এই সব ডিসকোথেকে মালিকের মাইনে করা পোষা মাসলম্যানরা ঘোরাঘুরি করে। কেউ বেচাল কিছু করলে, মেয়েদের বিরক্ত বা টিজ্ করলে বা মাতলামো করলে সোজা ঘাড় ধরে বাইরে বের করে দেয়।
রুমিদির শ্যাডোয়িং দেখে আমার বেশ সাহস এসে গেছে, রুমিদি পাশে বসতেই ওর কাঁধটা জড়িয়ে ধরলাম, রুমিদি আমার কোমরটা পেঁচিয়ে ধরল। ভদকার গ্লাসটায় একট চুমুক দিয়ে আমার মুখের সামনে ধরল, আমিও তাতে একটা লম্বা চুমুক দিলাম। ভদকাটা শেষ করে আমি উঠে দাঁড়ালাম, রুমিদির হাত ধরে দুজনে মিলে ডান্সিং ফ্লোরে এলাম।
আমার তখন বেশ ঝিমঝিম অবস্থা, রুমিদিকে প্রায় জড়িয়ে দুজনে মিলে মিউজিকের তালে তালে শরীর দোলাতে লাগলাম। রুমিদির কোমরে হাত দিতে ও আমার আরও কাছে চলে এল, আমি ওর পাছার উপর হাতটা সরিয়ে নিয়ে এলাম, শরীর দোলানোর সাথে ওর টাইটস্-এর তলার থাকা প্যান্টি লাইনটার উপর হাত বোলাতে লাগলাম। ও নিজের বুক দিয়ে আমার বুকটায় আলতো ভাবে ঠেকিয়ে মাঝে মাঝে ঘষে দিতে লাগল। আমার খোলা পিঠে ওর হাতটা নিয়ে বুলিয়ে দিতে থাকল।
কামনার আগুনে আমার সর্বশরীর দাউদাউ করে জ্বলে উঠল। আমার আর কিছু ভাল লাগছিল না, মনে হচ্ছিল এখানে, এখনই রুমিদি আমাকে ল্যাংটো করে দিক, দুজনে মিলে এখনই বিছানায় শুয়ে উদ্দাম চোদন শুরু করি। চোখ বন্ধ করে সারা শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রুমিদির হাল্কা ছোঁয়া অনুভব করতে লাগলাম।ও ব্য্যপারটা বুঝতে পেরে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠল, আমার গায়ের সাথে নিজেকে  প্রায় মিশিয়ে দিয়ে মিউজিকের তালে তালে ওর সারা শরীরটা আমার শরীরে ঘষতে লাগল। আমি আরামে চোখ বন্ধ করে ওর যৌনতা মাখা আদর খেতে লাগলাম। পাশাপাশি আরও কয়েকজন আছে, গোটা হলে সারাউন্ড সাউন্ডের মিউজিক, সাথে সাইকোডেলিক লাইট, হুইক্সি আর রামের নেশা ধরানো গন্ধ, লোকজনের কথাবার্তা, উদ্দাম নাচানাচি –এই সব কিছুর মাঝেও আমরা দুজনে যেন একা হয়ে গেলাম। কে কোথায় কি বলছে, কি করছে, কিছু জানি না, আমি আর ও যেন এক বিচ্ছিন্ন শান্ত নির্জন দ্বীপে মুখোমুখি বসে, চারিদিকে অপরিসীম শূণ্যতা। কোন কিছুই আমাদের স্পর্শ করছে না, আমরা আমাদের জগতে এই কলরবের মধ্যেও হারিয়ে গেলাম। দুজনের কেউই কোন কথা বলছি না, অথচ দুজনেই দুজনের মনের প্রত্যেকটা কথা জেনে চলেছি। বাকহীন এই কথোপকথন ভালবাসার জোয়ারে আর কামনার বিষের জ্বালায় আমাদের দুজনকে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে থাকল।
কিছুক্ষন পর চোখ খুলে দেখি রুমিদিরও প্রচন্ড হিট উঠে গেছে, চোখদুটো ছলছল করছে, দাঁত দিয়ে ঠোটের কোণটা কামড়ে ধরে আছে। আশেপাশের লোক আমাদের দুজনকে হাঁ করে গলছে। এতক্ষন শরীর দোলানোর ফলে টপটা একটু ঊঠে গেছিল, সেটকে টেনে নামাতে নিপলগুলো যেন ফেটে  বেরিয়ে আসার মত হল। হিট উঠে যেতে অ্যাওলাটা কুঁচকে জড়ো হয়ে গেছে, নিপলদুটো খাঁড়া হয়ে সবাইকে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে। রুমিদি আমার উঁচু উঁচু বোঁটাদুটোর দিকে চেয়ে মুচকি হাসল, আমি গ্রাহ্য করলাম না। ভদকার নেশাটা বেশ ঝিম ধরানো আবেশ এনে দিয়েছে, নিজের শরীরটা আলগাভাবে দেখাতে ভালই লাগছিল। চুলটা ঠিক করার অছিলায় হাতটা মাঝে মাঝে মাথার উপর তুলে বগলটাকে সবার মাঝে উন্মুক্ত করে দিচ্ছিলাম। আশেপাশের ছেলেগুলো তাদের পার্টনারের সাথে নাচতে নাচতে আমার দিকে ফিরে ফিরে তাকাতে লাগল, আমি সেটা উপভোগই করছিলাম বলা যায়।
একটা জিনিষ খুব অদ্ভুত লাগল, আমার যে উত্তেজনা সেটা কিন্তু রুমিদির জন্যই, রুমিদিকে পাওয়ারই ইচ্ছা, একান্তভাবেই লেসবি যৌন কামনা। কোন পুরুষকে পাওয়ার ইচ্ছে হচ্ছে না, পুরুষকে পেলে এই কামনা বোধহয় মিটবেও না। লেসবি মেয়েরা যে একদমই অন্য জগতের বাসিন্দা, তাদের চাওয়া-পাওয়া যে সম্পূর্ণ অন্যরকম, সেটা নিজেকে দিয়েই বুঝতে পারছি। তবে এই মুহূর্তে সত্যিই খুব অস্বস্তি লাগছিল, সারা শরীরটা ঝিনঝিন করছে, পাদুটোতে ঠিক মত জোর পাচ্ছি না, মনে হচ্ছে পড়ে যাব, তলপেটটায় একটা চাপ অনুভব করছি। অনেকক্ষন টয়লেটে যাইনি, খালি পেটে ভদকাও অনেকটা ঢুকেছে, ব্লাডার-টা আর রাখতে পারছে না। রুমিদিকে আস্তে করে বললাম
   -একটু ছাড়ো, আমি টয়লেট যাব
   -বমি পাচ্ছে নাকি? উদ্বিগ্ন হয়ে ও জিজ্ঞেস করল।
   -না, না, এমনিই দরকার।
টয়লেটটা খুঁজে পেতে অসুবিধা হল না, দরজা লাগিয়ে স্কার্টের তলা থেকে প্যান্টিটা নামিয়ে বসে পড়লাম, আর সাথে সাথে হিসহিস শব্দে স্রোতের মত তরল শরীর থেকে বেরিয়ে আসতে লাগল। ব্লাডারটা ফাঁকা হতে তলপেটে স্বস্তি এল, শেষের দিকে ছিড়িক ছিড়িক করে জমা তরলের শেষবিন্দু পর্যন্ত বেরিয়ে যেতে নিজেকে হাল্কা মনে হল। টয়লেট টিস্যু পেপার দিয়ে গুদটা মুছতে গিয়ে দেখি ভিতরটা একটু হড়হড়ে হয়ে গেছে। রস বেরোতে শুরু করে দিয়েছে এরই মধ্যে। নেটের প্যান্টি পড়ে ছিলাম বলে ভিজে ভাবটা আসেনি। নতুন আর একটা টিস্যু পেপার দিয়ে গুদের ভিতরের রসটা টেনে শুকিয়ে নিলাম। অনেকটা পথ গাড়ী চালিয়ে ফিরতে হবে, এই অবস্থায় বেসামাল হয়ে অ্যাকসিডেন্ট করে কেলেঙ্কারী কান্ড বাধাতে চাই না। চোখমুখে জলের ঝাপটা দিলাম, কান আর ঘাড়ের পিছনে জল দিতে অনেকটা ফ্রেশ মনে হল নিজেকে। বেসিনের পাশে লাগানো রোলার থেকে টিস্যু পেপার ছিঁড়ে আলতো করে জলটা মুছে নিলাম।
ঘড়িতে দেখলাম প্রায় সাড়ে নটা, আজকের দিনের মত যথেষ্ঠ হয়েছে, এখানে আর থাকতেও ভাল লাগছে না, খালি মনে হচ্ছে কখন বাড়ী গিয়ে রুমিদিকে আবার একান্তভাবে পাব। আমাকে টয়লেট থেকে বের হতে দেখে রুমিদি আমার কাছে এগিয়ে এল, আমার কাঁধে হাত রেখে বলল
   -থাকবে আর একটু না এবার যাবে?
   -চল, এবার বেরোই, যেতেও হবে অনেকটা।
   -গাড়ী চালাতে অসুবিধা হবে নাতো?
   -না, না, সেরকম কিছু না, আমি ঠিক আছি।
বিদেশে রাস্তায়, বিশেষত রাতের দিকে, পুলিশ গাড়ী থামিয়ে যে গাড়ী চালাচ্ছে তার মুখ থেকে নিঃশ্বাসের বাতাস একটা ফানেলের মত যন্ত্র দিয়ে সংগ্রহ করে টেস্ট করে, যদি নিঃশ্বাসের বাস্পে অ্যালকোহলের পরিমান নির্দিষ্ট মাত্রার চেয়ে বেশী থাকে, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে ড্রাইভারকে অ্যারেস্ট করে পুলিশ পোষ্টে পাঠিয়ে দেয়, বিশাল অঙ্কের ফাইন হয় ও গাড়ী সেই সময়ে সীজ করে নেয়, যেটা ছাড়াতে কালঘাম ছুটে যায়। সেইজন্য পার্টিতে বা বারে গেলে, দলের একজনকে অবশ্যই অ্যালকোহল ফ্রী থাকতে হয়। আমাদের এখানে অবশ্য এতটা কড়াকড়ি করা যায়নি, গেলে আমাকে আর রুমিদিকে অবশ্যই আজ রাতে হাজতবাস করতে হত।
কাউন্টারে পেমেন্ট করে লিফটে করে চলে এলাম সোজা বেসমেন্টে। সিকিউরিটির দায়িত্বে থাকা লোকটার কাছ থেকে চাবি নিয়ে, ওকে ভাল রকম একটা টিপস্ দিয়ে গাড়ীর সেন্ট্রাল ইলেকট্রনিক লকিংটা খুললাম। পিছনের দরজাটা খুলে রুমিদিকে বললাম
   -উঠে পড়।
   -আমি মানে পিছনে কেন সামনে কি অসুবিধা
   -কিছু না, তুমি ওঠ না পেছনে
   -কি ব্যাপার বলোতো বুঝতে পারছি না কিছু হয়েছে তোমার
   -বলছি তো কিছু না, ভয় নেই, আমার নেশাটা অতটা হয়নি যে গাড়ী উল্টোপাল্টা চালিয়ে অ্যাকসিডেন্ট করব, আমার ভয়টা অন্য জায়গায়।
   -কিসের ভয়?
   -না গো, কিছু না, পরে বলব, এখন ওঠো তো, দেরী হয়ে যাচ্ছে, বলে রুমিদিকে প্রায় ঠেলে ঢুকিয়ে দিয়ে আমি স্টীয়ারিং-এ বসলাম। দরজায় সেন্ট্রাল লকিংটা করে গাড়ীর সব কাঁচগুলো নামিয়ে দিলাম। গাড়ী অনেকক্ষন কাঁচবন্ধ অবস্থায় থাকলে ভিতরে একটা গুমোট গ্যসের মত হয়, কাঁচগুলো নামিয়ে মিনিটখানেক চালালে বাইরের হাওয়ার তোড়ে সেই গুমোট ভাবটা কেটে যায়। স্টার্ট দিয়ে গাড়ী বেসমেন্ট থেকে বার করে সোজা রাস্তায় পড়লাম, কিছুক্ষন পর কাঁচগুলো তুলে এসি-টা অন করতে গিয়ে ভিউফাইন্ডারে দেখি পিছনে রুমিদি হেডরেস্টে মাথা রেখে চোখ বন্ধ করে আছে, বোধহয় ঘুমিয়েই পড়েছে। আমার ব্যবহারে বোধহয় কষ্ট পেল, অবাকও হয়েছে নিশ্চয়। কিন্তু আমার কিছু করার ছিল না।
আমার ভয়টা রুমিদিকেই, ভদকার নেশার নয়, রুমিদির নেশাটাই আরও বিপদজনক। রুমিদি পাশে বসে থাকলে আমার সমস্ত মনটা রুমিদির দিকেই থাকবে, রাস্তার দিকে তাকিয়ে গাড়ী চালাতে পারব না। যারা গাড়ী নিয়মিত চালায়, তারা জানে যে স্টীয়ারিং-এ বসে গাড়ীর ইগনিশন কি অন করলে ইজ্ঞিনের আওয়াজের সাথে সাথেই সারা শরীরের স্নায়ু টানটান হয়ে যায়, শরীরের অবস্থা যাই হোক না কেন, যদি না একদম বেহেড মাতাল হয়ে থাকে। কিন্তু অমনোযোগী হয়ে চালালে বিপদ অনিবার্য। একই জিনিষ হয়েছিল যখন আমি এয়ারপোর্ট থেকে রুমিদির ফোন পেয়েছিলাম ওর বাড়ী আসার জন্য। এতটাই মনটা বিক্ষিপ্ত হয়ে গেছিল যে রাস্তায় গাড়ী দাঁড় করিয়ে মনটাকে ঠান্ডা করতে হয়েছিল। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি আমি আর চাই না, তাও এই রাতে, নির্জন রাস্তায়। রুমিদিকে পিছনে পাঠিয়ে নিশ্চিন্ত মনে গাড়ী ছোটালাম। রুমিদি পিছনে ঘুমোচ্ছে। হেডলাইটের আলোয় বর্শার ফলার মত সামনের অন্ধকারকে চিরে আমার গাড়ী ছুটতে লাগল, আমি গুনগুন করতে থাকলাম, - কান্ট্রি রোডস্, টেক মি হোম/টু দ্যা প্লেস আই বিলং/ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া মাউন্টেন মোম্মা/ টেক মি হোম, কান্ট্রি রোডস্

No comments:

Post a Comment

www.lochan.in

Popular Posts

Best Blogger Gadgets